ফের জোর ধাক্কা বিশ্বভারতীর, হাইকোর্টের নির্দেশে বহিষ্কৃত তিন ছাত্র-ছাত্রীরা সাসপেনশন খারিজ

biswabharati

Mysepik Webdesk: ফের হাইকোর্টে জোর ধাক্কা খেল বিশ্বভারতী। অনৈতিকভাবে বিশ্বভারতীর তিন পড়ুয়াকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত এবার সম্পুর্নভাবে খারিজ করল কলকাতা হাইকোর্ট। বুধবার বিশ্বভারতীর করা এক রিট পিটিশনের রায় দিতে গিয়ে এই নির্দেশ দেন বিচারপতি রাজা শেখর মান্থা। একইসঙ্গে উপাচার্যকে আরও সহনশীল হওয়ার পরামর্শ দিল হাইকোর্ট। উল্লেখ্য, ছাত্র আন্দোলনের জেরে অর্থনীতি ও রাজনীতি বিভাগের সোমনাথ সৌ, ফাল্গুনী পান এবং সঙ্গীত ভবনের ছাত্রী রূপা চক্রবর্তীকে তিন মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছিল। পরে সাসপেনশন দুই দফায় বাড়িয়ে ন’মাসের কোটায় নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেই সময় সীমা শেষ হয়ে এলে ওই তিন পড়ুয়াকে তিন বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়।

আরও পড়ুন: দুধের দাম বৃদ্ধির দাবিতে ভাগীরথী চিলিং প্ল্যান্টের গেট বন্ধ করে বিক্ষোভ দুধ ব্যবসায়ীদের

বিশ্বভারতীর এই সিদ্ধান্তের ফলে শুরু হয় প্রতিবাদ। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এই ঘটনার বিরুদ্ধে সোচ্চার হন শিক্ষা মহল থেকে শুরু করে পড়ুয়ারাও। বিশ্বভারতীর উপাচার্যের বাংলোর সামনে মঞ্চ বেঁধে শুরু হয় উপাচার্য-ঘেরাও কর্মসূচি। দাবি তোলা হয়, উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘যথেচ্ছাচার’ করছেন। ফলে অবিলম্বে তাঁকে তাঁর পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে বিশ্বভারতী ত্যাগ করতে হবে। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বভারতীর তরফ থেকে কলকাতা হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দাখিল করা হয়। বুধবার সেই মামলার চূড়ান্ত রায় জানান কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজা শেখর মান্থা। বিশ্বভারতীর তিন পড়ুয়াকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত খারিজের নির্দেশ দেন তিনি। পাশাপাশি বিচারপতি বিশ্বভারতীর উপাচার্য অধ্যাপক বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে আরও বেশি সহনশীল হওয়ার পরামর্শ দেন। তাছাড়া আগামী ১৫ দিনের মধ্যে অন্যান্য পড়ুয়া এবং অধ্যাপকদের সাসপেনশনের সিদ্ধান্ত খতিয়ে দেখার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের পক্ষ থেকে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *