সম্পর্ক বাঁচাতে যা করলেন নার্স!

Nurse

Mysepik Webdesk: কথায় বলে, প্রেমের আবেগে মানুষ অন্ধ হয়ে যায়। প্রেমিক-প্রেমিকাকে কি না করতে দেখা যায়। কেউ ভালো কাজ করে তো কেউ আবার খারাপ। বেঙ্গালুরুর এক নামী হাসপাতালের প্রেম করতে গিয়ে এমন এক কাজ করেছে শুনলে চোখ কপালে উঠবে।

আরও পড়ুন: আজ কোটলায় কি একই মঞ্চে দেখা যাবে সৌরভ-অমিত শাহকে?

প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্ক বাঁচাতে মহিলা সহকর্মীদের স্রান করার ভিডিও পাঠানোর অভিযোগ উঠেছে বেঙ্গালুরুরের এক নার্সের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ওই নার্সকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে ভেলোর থেকে তার ২৪ বছরের প্রেমিকও গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে দু’জনেই অপরাধ স্বীকার করেছে।

জানা গেছে, অভিযুক্ত ওই নার্সের নাম অশ্বিনী। তিনি বেঙ্গালুরুর এক নামী হাসপাতালের আপৎকালীন বিভাগে কাজ করেন। অশ্বিনীর দু’বার বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু তা বেশিদিন টেকেনি।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অশ্বিনী জানিয়েছে, ভুল নম্বরে ফোন করে ২৪ বছরের প্রভুর সঙ্গে তার আলাপ হয়। প্রভু পেশায় নামী হোটেলের শেফ। অল্পদিনের মধ্যেই তাদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক পরিণত হয় প্রেমে। কিন্তু প্রভু যখন অশ্বিনীর আগের বিয়ের কথা জানতে পারে তখন সে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। অন্যদিকে সম্পর্ক বাঁচিয়ে রাখতে সমস্ত কিছু করার আশ্বাস দেয় অশ্বিনী। আর এই আশ্বাসেরই সুযোগ নেয় ২৪ বছরের যুবক।

আরও পড়ুন: মোদির মন কি বাত অনুষ্ঠান চলাকালীন আন্দোলনকারী কৃষকদের থালা বাজিয়ে প্রতিবাদ

প্রথমে অশ্বিনী নিজের নগ্ন, অশালীন ভিডিও পাঠাত। পরে মহিলা সহকর্মীদের ভিডিও পাঠায়। সম্পর্ক বাঁচাতে হাসপাতালের বাথরুমের সিলিঙে মোবাইল ফোন লুকিয়ে রাখত অশ্বিনী। মহিলা কর্মীরা সেখানে স্রান করতেন। সেই ছবি ও ভিডিও প্রেমিককে সরবরাহ করতেন তিনি।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এই ছবি ও ভিডিও অনলাইনেও বিক্রি করা হতো। হাসপাতালের এক কর্মী সিলিঙে অশ্বিনীর ফোনটি দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে তিনি কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানান। ঘটনা জানাজানি হয়ে গেলে অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে অশ্বিনী। কিন্তু তাকে সুস্থ করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। কোনও কোনও সাইটে এই ছবি ও ভিডিওগুলো বিক্রি করা হয়েছে। প্রভুর সঙ্গে এই কর্মকাণ্ডে অন্য কেউ জড়িত রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *