করোনায় মৃত্যুর আশঙ্কা কাদের বেশি? জানাচ্ছেন এইমস-এর গবেষকরা

Mysepik Webdesk: করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে দেশে বাড়ছে উদ্বেগ। ইতিমধ্যেই ভারতের ১১টি রাজ্যে পাওয়া গিয়েছে ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্তের সন্ধান। আশঙ্কা করা হচ্ছে মহাসংক্রামক এই ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টই দেশে বয়ে আনতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ। তবে করোনা আক্রান্ত হলে কাদের মৃত্যুর সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি, সেই বিষয়ে একটি গবেষণা করেছিলেন এইমস-এর গবেষকরা। সেই গবেষণাতেই এবার উঠে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

আরও পড়ুন: ‘আপনারা দেশের খেয়াল রাখেন, আপনাদের খেয়াল রাখার দায়িত্ব আমাদের ‘, লে সফরে গিয়ে জানালেন রাজনাথ সিং

একটি নির্দিষ্ট কোভিড সেন্টার থেকে গবেষণার তথ্য সংগ্রহ করার পর ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ ক্রিটিক্যাল কেয়ার মেডিসিনের ওই রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, ৬৫ ঊর্ধ্ব ব্যক্তিরা কিছুটা হলেও সুরক্ষিত। তবে ৫০ বছরের কম বয়সীদের ক্ষেত্রে করোনাভাইরাস প্রাণঘাতী হয়ে উঠতে পারে। ডা, রাজেশ মালহোত্রা, এইমস-এর ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া তাঁদের রিপোর্টে জানাচ্ছেন, আইসিইউতে ভর্তি থাকা ৬৫৪ জন প্রাপ্তবয়স্ক করোনা রোগীর মধ্যে ২৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। যাদের মৃত্যু হয়েছে, তাদেরকে ১৮-৫০, ৫১-৬৫ এবং ৬৫ ঊর্ধ্ব-এই তিনটি বয়সসীমায় ভাগ করে বিশ্লেষণ করা হয়। সেক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, মৃতদের মধ্যে ৪২.১ শতাংশের বয়স ছিল ১৮ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ৩৪.৮ শতাংশের বয়স ছিল ৫১ থেকে ৬৫ শতাংশের মধ্যে এবং ২৩.১ শতাংশ ছিল ৬৫ ঊর্ধ্ব। অর্থাৎ ৬৫ ঊর্ধ্ব বয়সিদের মৃত্যুর হার সবচেয়ে কম।

আরও পড়ুন: জম্মুর শপিং মল থেকে উদ্ধার প্রচুর পরিমাণ বিস্ফোরক, ধৃত ২

ওই রিপোর্টে আরও জানা গিয়েছে, কারণে প্রয়াতদের মধ্যে ৪৩.৩২ শতাংশ ব্যক্তি আগে থেকেই হাইপারটেনশনের রোগী ছিলেন। এছাড়াও ৩৪.৮২ শতাংশ রোগীদের ডায়াবেটিস ছিল। তাছাড়াও মৃতদের মধ্যে ৬৫.৯ শতাংশ ব্যক্তির বয়স ছিল গড়ে ৫৬ বছর এবং ৯৪.৭ শতাংশের একের বেশি কো-মর্বিডিটি ছিল। প্রসঙ্গত, কেন্দ্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় দেশজুড়ে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫০ হাজার ৪০ জন। এই নিয়ে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩ কোটি ২ লক্ষ ৩৩ হাজার ১৮৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় মেইটটু হয়েছে ১ হাজার ২৫৮ জনের। এই নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩ লক্ষ ৯৫ হাজার ৭৫১ জন। অন্যদিকে একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫৭ হাজার ৯৪৪ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৯২ লক্ষ ৫১ হাজার ২৯ জন। এক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লক্ষ ৮৬ হাজার ৪০৩ জন।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *