কেন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল ফেসবুক-হোয়াটস অ্যাপ, ব্যাখ্যা দিলেন ফেসবুকের টেকনোলজি অফিসার

Mysepik Webdesk: গতকাল, ৪ অক্টোবর প্রায় ঘন্টা ছয়েক ধরে স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যম ফেসবুক, হোয়াটস অ্যাপ ও ইনস্টাগ্রাম। সেই সময় বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ না পারছিলেন হোয়াটস অ্যাপে কোনও মেসেজ পাঠাতে, না পারছিলেন ফেসবুকে কোনও পোস্ট করতে। কিন্তু হটাৎ করে কেন এতো দীর্ঘসময় ধরে বন্ধ ছিল জনপ্রিয় এই সোশ্যাল মিডিয়াগুলি। অনভিপ্রেত এই ঘটনার ব্যাখ্যা দিলেন ফেসবুকের মুখ্য টেকনোলজি অফিসার জন গ্রাহাম কামিং।

আরও পড়ুন: ফেসবুক বিভ্রাট ও বিতর্কের ধাক্কা, কয়েক ঘণ্টায় জুকেরবার্গের ক্ষতি কয়েক কোটি টাকা

তিনি জানান, বিজিপি (বর্ডার গেটওয়ে প্রোটোকল) আপডেটের ফলেই দেখা দেয় যাবতীয় সমস্যা। এর ফলে মূলত ডিএনএস (ডোমেন নেম সার্ভিস) বন্ধ হয়ে যায়। ফলে, ডিএনএস এরর দেখা দেয় ফেসবুকে। তিনি জানান, “প্রথমের দিকে বাইরে থেকে সমস্যাটি খুব একটা বড়ো মনে হয়নি। পরে সেই সমস্যায় মারাত্মক বড়ো আকার ধারণ করে। সময় না দিয়েই বন্ধ হয়ে যায় ফেসবুক, হোয়াটস অ্যাপ ও ইনস্টাগ্রাম-সহ যাবতীয় সার্ভিসগুলি।” তিনি আরও জানান, এই ঘটনায় অবশ্য ব্যবহারকারীদের যাবতীয় ছবি-ভিডিও কিংবা মেসেজ সুরক্ষিত ছিল।

আরও পড়ুন: মর্মান্তিক! বিল্ডিঙের ওপর ভেঙে পড়ল আস্ত বিমান, মৃত ৮

জন গ্রাহাম আরও জানান, শুধু ইউজাররাই নয়, ওই সময় সমস্যায় পড়েছিলেন সংস্থার কর্মীরাও। সমস্যা চলাকালীন সংস্থার ক্যালিফোর্নিয়ার অফিসে কনফারেন্স রুমে ঢুকতে পারেননি কর্মীরা। ওই রুমে ঢুকতে গেলে একটি সিকিওরিটি ব্যাজ ব্যবহার করতে হয়, যা ওই সময় কাজ করছিল না। ফলে রুমের ভেতরে থাকা ও রুমের বাইরে থাকা কর্মীরাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিল। তবে পরবর্তী সময়ে জানা যায় মূল সমস্যাটি রয়েছে সংস্থার রাউটারেই। প্রায় ৬ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চেষ্টা করে অবশেষে সমস্যার সমাধান করে সংস্থা।

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *