থর মরুভূমিতে ক্রিকেট-প্রেমের দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি করে উইজডেন অ্যাওয়ার্ড স্টিভ ওয়ার

Steve Waugh

Mysepik Webdesk: অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি স্টিভ ওয়ার ক্রিকেট কেরিয়ারের কথা কে না জানেন। এককথায় তিনি বিশ্ববিদিত ছিলেন। ভারতেও তাঁর জনপ্রিয়তা কম কিছু ছিল না। তবে প্রাক্তন এই অজি অধিনায়ক যে বহুগুণসম্পন্ন, তা জানা গিয়েছে সম্প্রতি। ব্যাট হাতে এক জাদুকরের নাম স্টিভ ওয়া। এতদিন যাঁরা একথা জেনেছিলেন, তাঁরা এখন একথাও জেনে নিন― ক্যামেরা হাতেও জাদু দেখাতে পারেন।

আরও পড়ুন: টটেনহ্যাম কোচের পদ থেকে বরখাস্ত মরিনহো

I never imagined that one of my photographs would win such a prestigious as the Wisden Cricket Photograph of the Year…

Posted by Steve Waugh on Friday, April 16, 2021

স্টিভ ওয়াকে ‘উইজডেন ফোটোগ্রাফ ২০২০’ অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করা হয়েছে। এই পুরস্কার ৫৫ বছরের প্রাক্তন এই ক্রিকেটারকে অনন্য এক সম্মান এনে দিয়েছে। ২০২০ সালের জানুয়ারিতে স্টিভ তিন সপ্তাহের জন্য ভারত ভ্রমণে গিয়েছিলেন। তাঁর যে ছবিটি পুরস্কার জিতেছে, সেই ফ্রেমটি তিনি ক্যাপচার করেছিলেন রাজস্থানে। থর মরুভূমিতে বাচ্চাদের ক্রিকেট খেলার এক মনোরম দৃশ্য ক্লিক করেছিলেন স্টিভ।

আরও পড়ুন: হৃদরোগ-জনিত কারণে হাসপাতালে মুরলীথরন, ছাড়া পেলেন আজ

ভারত ভ্রমণের সময় তিনি রাজস্থানের যোধপুর জেলা সদর থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে ওসিয়ান মহকুমায় এসেছিলেন। যোধপুর ভ্রমণের সময় স্টিভ জানতে পারেন যে, ওসিয়ানে সকালে বাচ্চারা বালির টিলার ওপর ক্রিকেট খেলে। এরপর টেস্ট ক্রিকেটে ৩২ সেঞ্চুরির মালিক সেখানে পৌঁছে যান এবং সেই দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি করেন।

স্টিভ ওয়া ভারত সফরের সময় ক্যামেরাবন্দি করা ২০০টি ছবি নিয়ে ফোটোগ্রাফার ট্রেন্ট পার্কের সঙ্গে ‘দ্য স্পিরিট অফ ক্রিকেট-ইন্ডিয়া’ নামে এক বই প্রকাশ করেছেন। এতে তিনি ছবি তোলার সময় নিজের মতামতও পোষণ করেছেন।

স্টিভ ওয়ার ক্যামেরাবন্দি পুরস্কারপ্রাপ্ত ছবিটি ইএসপিএন ক্রিক ইনফো তাদের টুইটার হ্যান্ডেলে শেয়ার করে ছবিটিকে উইজডেন ২০২০ অ্যাওয়ার্ড জয়ী হিসাবে বর্ণনা করেছে। স্টিভের এই ছবিটিকে অন্য ৩০০ ছবির মধ্যে সেরা হিসাবে বেছে নেওয়া হয়েছে।

স্টিভ জানিয়েছেন, ২০২০-র জানুয়ারির শীতের সকালে শিশুদের হৃদয় দিয়ে ক্রিকেট খেলার দৃশ্য তিনি ক্যামেরাবন্দি করতে এসেছিলেন। বাচ্চাদের কেবল একটি স্টাম্প এবং একটি খারাপ রাবারের বল ছিল। তবে তাদের ক্রিকেট খেলার অনুরাগ ছিল আশ্চর্যজনক। তারা মনপ্রাণ দিয়ে ক্রিকেট খেলছিল।

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Facebook Twitter Email Whatsapp

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *