ত্রিপুরায় গ্রেফতার যুব তৃণমূল নেত্রী সায়নী ঘোষ, ‘অন্যায় গ্রেফতারি’ টুইট কুনাল ঘোষের

Mysepik Webdesk: দিনভর চরম উত্তেজনার পর দিনের শেষে ত্রিপুরা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলেন যুব তৃণমূল নেত্রী সায়নী ঘোষ। থানায় ডেকে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁকে গ্রেফতার করে ত্রিপুরা পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে ৩০৭ ধারা অর্থাৎ খুনের চেষ্টার মামলা রুজু করা হয়েছে। এদিকে, তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ ত্রিপুরা সরকারকে ধিক্কার জানিয়ে সায়নী ঘোষের গ্রেফতারিকে ‘অন্যায়’ বলে টুইট করেছেন। টুইট তিনি লেখেন, “অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করল সায়নী ঘোষকে। ধিক্কার ত্রিপুরা সরকার। থানায় হামলাকারীরা গ্রেপ্তার হল না। গ্রেপ্তার হল সায়নী।”

আরও পড়ুন: বিজেপির জাতীয় মুখপাত্রের দায়িত্ব পেলেন ভারতী ঘোষ

সায়নী ঘোষের বিরুদ্ধে এদিন জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু করে আগরতলার পুলিশ। ফলে, রবিবার রাতে থানার লকআপেই কাটাতে হবে যুব সভানেত্রীকে। এদিন কুনাল ঘোষ প্রশ্ন করেন, সায়ানিকে গ্রেফতার করার পর কেন তাঁকে আদালতে তোলা হচ্ছে না। প্রসঙ্গত, শনিবার রাতে সায়নী ঘোষের গাড়ি একজনকে ধাক্কা মেরেছে। আহত অবস্থায় তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। রবিবার দুপুরে তৃণমূলের যুবনেত্রী সায়নী ঘোষের সন্ধানে আগরতলার হোটেলে হানা দেয় ত্রিপুরা পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁকে ত্রিপুরা ইস্ট মহিলা থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

আরও পড়ুন: ন্যূনতম সহায়ক মূল্য চাই-সহ একাধিক দাবিতে আন্দোলনে অনড় কৃষকরা

এদিকে থানার বাইরে কার্যত তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি বেধে যায় বিজেপি সমর্থকদের। পুলিশ থামাতে গেলে, পুলিশের সঙ্গেও বচসা বাধে তৃণমূল কর্মীদের। তৃণমূল কর্মীদের উপর ইটবষ্টির অভিযোগ ওঠে বিজেপি সমর্থকদের বিরুদ্ধে। কুণাল ঘোষ বলেন, “পুলিশের সঙ্গে আমাদের কোনও বিরোধ নেই। এখানে পুলিশ কর্মীরা রাজনীতির শিকার হচ্ছেন। তাদের উপর রাজনৈতিক নেতাদের চাপ রয়েছে। তাদের যা বলা হচ্ছে, তাই করছে। ওদের SDPO নিজে বিজেপি কর্মীদের হাতে আক্রান্ত হয়েছেন।”

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *