জ্যাঙ্গো, র‍্যাম্বো আর ক্রিকেট

রাহুল দাশগুপ্ত

জ্যাঙ্গো বলল, এবার কিন্তু আমি আগে টিমটা করব।

র‍্যাম্বো বলল, বেশ তাই হোক। তবে মনে রাখিস, আমাদের টিমটা হবে গত পঞ্চাশ বছরের বাছাই করা প্লেয়ারদের নিয়ে। তার আগে যাবি না।

জ্যাঙ্গো বলল, তার মানে ১৯৭০ থেকে ধরব?

ঠিক তাই। র‍্যাম্বো বলল, মূলত টেস্ট ক্রিকেটের কথা মাথায় রেখেই আমরা করব। ঠিক আছে? ক্রিকেটের সব কটা ফর্মের মধ্যে ওটাই সেরা…

জ্যাঙ্গো বলল, বেশ।

র‍্যাম্বো বলল, তোর ওপেনার কে কে হবে?

আমার? জ্যাঙ্গো বলল, আমার টিমে ওপেন করবে শচীন তেন্ডুলকর আর ব্রায়ান লারা।

র‍্যাম্বো বলল, ওরা তো টেস্টে ওপেন করে না।

জ্যাঙ্গো বলল, তাতে কী? ওয়ানডে-তে তো করেছে। টেস্টেও করবে। আমার উপায় নেই বুঝলি? শচীন ২০০টা টেস্টে ১৫৯২১ রান করেছে। অ্যাভারেজ, ৫৩.৮। আর লারা ১৩১টা টেস্টে করেছে ১১৯৫৩ রান। অ্যাভারেজ, ৫২.৮৮। শচীনের সেঞ্চুরি ৫১টা, লারার ৩৪টা। আধুনিক বিশ্বের দুই সেরা ব্যাটসমান।

আরও পড়ুন: জ্যাঙ্গো, র‍্যাম্বো আর ফুটবল

র‍্যাম্বো বলল, বেশ। এবার মিডল অর্ডারে আয়…

জ্যাঙ্গো বলল, তাহলে শোন। তিনে ভিভ রিচার্ডস, চারে রিকি পন্টিং, পাঁচে জ্যাক কালিস এবং ছয়ে কুমারা সাঙ্গাকারা।

র‍্যাম্বো বলল, চমৎকার।

জ্যাঙ্গো বলল, আসলে ভিভ রিচার্ডসের মতো বিধ্বংসী ব্যাটসমান ব্র্যাডম্যানের পরে আর কেউ আসেননি। ১২১টা টেস্টে ৮৫৪০ রান। অ্যাভারেজ, ৫০.২৩। সেঞ্চুরি ২৪টা। কিন্তু শুধু পরিসংখ্যান দিয়ে রিচার্ডসকে পুরোটা বোঝানো যাবে না। এরপর আসবেন, রিকি পন্টিং। ১৬৮টা টেস্টে ১৩, ৩৭৮ রান। অ্যাভারেজ, ৫১.৮৫। সেঞ্চুরি ৪১টা। আমার দলের ক্যাপ্টেন রিকিই। ৭৭টা টেস্টে ক্যাপ্টেন্সি করে ৪৮টায় জিতেছে। প্লেয়ার হিসাবে ১০০টা টেস্ট জয়ের রেকর্ড একমাত্র তাঁরই আছে। পাঁচ নম্বরে আসবেন, জ্যাক কালিস। সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডার। ১৬৬টা টেস্টে ১৩, ২৮৯ রান করেছেন। অ্যাভারেজ, ৫৫.৩৭। সেঞ্চুরি ৪৫টা। উইকেট পেয়েছেন ২৯২টা। অ্যাভারেজ, ৩২.৬৫। স্ট্রাইক রেট, ৬৯.২। ইকোনমি, ২.৮২। ছয় নম্বরে কুমারা সাঙ্গাকারা ছাড়া কেই বা আসতে পারেন? আমার উইকেটকিপার। ১৩৪টা টেস্টে ১২,৪০০ রান। অ্যাভারেজ, ৫৭.৪০। সেঞ্চুরি ৩৮টা। উইকেটকিপার হিসাবে আউট করেছেন ১৪৪ জনকে।

আরও পড়ুন: ৪৭ বছর পরেও গাভাস্করের মনে অম্লান মাঠের মধ্যে চুল কাটার স্মৃতি

র‍্যাম্বো বলল, দারুণ টিম। এবার বোলিংটা বলল।

জ্যাঙ্গো বলল, একজন বোলিং অলরাউন্ডার, তিনজন খাঁটি পেসার, একজন স্পিনার। এটাই আমার কম্বিনেশন। বোলিং অলরাউন্ডার হিসাবে থাকবেন রিচার্ড হ্যাডলি। ৮৬টি টেস্টে ৪৩১টা উইকেট। অ্যাভারেজ, ২২.২৯। স্ট্রাইট রেট, ৫০.৮। ইকোনমি, ২.৬৩। এরকম অ্যাকিউরেসি খুব কম বোলারের আছে। রান করেছেন, ৩১২৪। অ্যাভারেজ, ২৭.২। সেঞ্চুরি ২টো। খাঁটি পেসার হিসাবে থাকবেন, ম্যালকম মার্শাল, গ্লেন ম্যাকগ্রা এবং ওয়াসিম আক্রম। মার্শাল ৮১টা টেস্টে ৩৭৬টা উইকেট নিয়েছেন। অ্যাভারেজ, ২০.৯৪, স্ট্রাইক রেট, ৪৬.৭, ইকোনমি, ২.৬৮। পাশাপাশি করেছেন ১৮১০ রান, অ্যাভারেজ ১৮.৮৫। ম্যাকগ্রার ১২৪টা টেস্টে ৫৬৩টি উইকেট। অ্যাভারেজ, ২১.৬৪, স্ট্রাইক রেট ৫১.৯, ইকোনমি ২.৪৯। ওয়াসিম আক্রম সর্বকালের সেরা বাঁ-হাতি পেসার। ১০৪টা টেস্টে ৪১৪ উইকেট। অ্যাভারেজ, ২৩.৬২, স্ট্রাইক রেট, ৫৪.৬, ইকোনমি, ২.৫৯। পাশাপাশি ব্যাটে ২৮৯৮ রান, অ্যাভারেজ, ২২.৬৪, সর্বোচ্চ, ২৫৭। ওয়ানডে সর্বকালের সেরা বোলার আক্রম, নিয়েছেন ৫০২টা উইকেট, অ্যাভারেজ, ২৩.৫২। একমাত্র স্পিনার হিসাবে আমার দলে থাকবেন, মুথাইয়া মুরলীথরন। ১৩৩টি টেস্টে ৮০০ উইকেট। অ্যাভারেজ, ২২.৭২, স্ট্রাইক রেট, ৫৫, ইকোনমি, ২.৪৭।

আরও পড়ুন: মনোহর আইচ: পান্তা ভাতের জল, তিন জোয়ানের বল

র‍্যাম্বো বলল, তাহলে তোর দলটা কী দাঁড়াল?

জ্যাঙ্গো বলল, পুরো দলটা এইরকম: ব্রায়ান লারা, শচীন তেন্ডুলকর, ভিভ রিচার্ডস, রিকি পন্টিং (অধিনায়ক), জ্যাক কালিস, কুমারা সাঙ্গাকারা (উইকেটকিপার), রিচার্ড হ্যাডলি, ওয়াসিম আক্রম (সহ-অধিনায়ক), ম্যালকম মার্শাল, মুথাইয়া মুরলীথরন, গ্লেন ম্যাকগ্রা।

র‍্যাম্বো বলল, দারুণ টিম।

জ্যাঙ্গো বলল, আপশোসও আছে। গ্যারি সোবার্স আর শ্যেন ওয়ার্নকে নিতে পারলাম না। সর্বকালের সেরা দুই প্লেয়ার। কিন্তু কী আর করা যাবে! এবার তোর টিমটা বল…

র‍্যাম্বো বলল, কঠিন কাজ। বেশ ওপেনার হিসাবে আমি নেব, সুনীল গাভাসকর আর ম্যাথু হেডেনকে। গাভাসকার ১২৫টি টেস্টে ১০১২২ রান করেছেন। অ্যাভারেজ, ৫১.১২, সেঞ্চুরি, ৩৪টি। অন্যদিকে হেডেন, ১০৩টি টেস্টে ৮৬২৫ রান করেছেন। অ্যাভারেজ, ৫০.৭৩, সেঞ্চুরি, ৩০টি।

জ্যাঙ্গো বলল, মিডল অর্ডার?

আরও পড়ুন: ‘পকেট হারকিউলিস’ হার মেনেছিলেন

র‍্যাম্বো বলল, তিনে, বীরেন্দ্র সেহওয়াগ, চারে, রাহুল দ্রাবিড়, পাঁচে গ্যারি সোবার্স, ছয়ে অ্যাডাম গিলক্রিস্ট। সেহওয়াগ হলেন ‘মডার্ন ভিভ’। ১০৪টা টেস্টে ৮৫৮৬ রান। অ্যাভারেজ, ৪৯.৩৪, সেঞ্চুরি ২৩টি। রাহুল দ্রাবিড়ের ১৬৪টি টেস্টে ১৩২৮৮ রান। অ্যাভারেজ, ৫২.৩১, সেঞ্চুরি ৩৬টি। জ্যাক কালিসের আগে পর্যন্ত সোবার্সকেই বলা হতে সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডার। ৯৩টি টেস্টে ৮০৩২ রান। অ্যাভারেজ, ৫৭.৭৮, সেঞ্চুরি ২৬টি। পাশাপাশি নিয়েছেন ২৩৫টি উইকেট, অ্যাভারেজ, ৩৪.০৩, স্ট্রাইক রেট, ৯১.৯। এখনও এই নিয়ে বিতর্ক চলে। অ্যাডাম গিলক্রিস্ট ৯৬টি টেস্টে ৫৫৭০ রান করেছেন। অ্যাভারেজ, ৪৭.৬০, সেঞ্চুরি, ১৭টি। গিলক্রিস্টই আমার দলের উইকেটকিপার।

আরও পড়ুন: ম্যান অব দ্য সিরিজ

জ্যাঙ্গো বলল, আর বোলিং?

র‍্যাম্বো বলল, বোলিং অলরাউন্ডার হিসাবে থাকবেন, ইমরান খান। তিনজন খাঁটি পেসার, ডেনিস লিলি, কার্টলে অ্যামব্রোজ এবং ডেইল স্টেইন। একজন স্পিনার, শ্যেন ওয়ার্ন। ইমরানের ৮৮টা টেস্টে ৩৬২টি উইকেট। অ্যাভারেজ, ২২.৮১, স্ট্রাইক রেট ৫৩.৭, ইকোনমি, ২.৫৪। ইমরানই আমার দলের ক্যাপ্টেন। ৪৮টি টেস্টে অধিনায়কত্ব করে ১৪টি জিতেছেন তিনি। পন্টিংয়ের মতো তিনিও বিশ্বকাপ জিতেছেন। লিলি ৭০টি টেস্টে ৩৫৫টি উইকেট পেয়েছেন। অ্যাভারেজ, ২৩.৯২, স্ট্রাইক রেট ৫২, ইকোনমি ২.৭৫। অ্যামব্রোজ ৯৮টি টেস্টে ৪০৫টি উইকেট নিয়েছেন। অ্যাভারেজ, ২০.৯৯, স্ট্রাইক রেট, ৫৪.৫, ইকোনমি ২.৩০। স্টেইনের ৯৩টি টেস্টে ৪৩৯টি উইকেট। অ্যাভারেজ, ২২.৯৫, স্ট্রাইক রেট বিস্ময়কর, সর্বকালের সেরা, ৪২.৩, ইকোনমি ৩.২৪। আমাদের দলের একমাত্র স্পিনার শ্যেন ওয়ার্ন ১৪৫টি টেস্টে ৭০৮টি উইকেট পেয়েছেন। অ্যাভারেজ, ২৫.৪১. স্ট্রাইক রেট ৫৭.৪, ইকোনমি ২.৬৫। ওয়ার্ন টেস্টে ৩১৫৪ রানও করেছেন, ১৭.৩২ অ্যাভারেজে।  

আরও পড়ুন: ‘ইউরোপ সেরা’ চেলসির ইতিহাস

জ্যাঙ্গো বলল, তাহলে তোর দলটা কী দাঁড়াল?

র‍্যাম্বো বলল, তা এইরকম: সুনীল গাভাসকর, ম্যাথু হেডেন, বীরেন্দ্র সেহওয়াগ, রাহুল দ্রাবিড়, গ্যারি সোবার্স (সহ-অধিনায়ক), অ্যাডাম গিলক্রিস্ট (উইকেটকিপার), ইমরান খান (অধিনায়ক), শ্যেন ওয়ার্ন, ডেল স্টেইন, কার্টলে অ্যামব্রোজ, ডেনিস লিলি। জ্যাঙ্গো বলল, দারুণ টিম। বেশ সমানে সমানে লড়াই হবে।

র‍্যাম্বো বলল, আর একটা মজার খেলা হতে পারে…

জ্যাঙ্গো বলল, কীরকম?

র‍্যাম্বো বলল, এই দু’টো টিমের মধ্যে না হয় ফাইনাল হল। কিন্তু সেমিফাইনালে খেলেছে আরও দু’টো দল। সেই দু’টো করলে কেমন হয়?

জ্যাঙ্গো বলল, আমার দলটার সঙ্গে যে দলটা খেলেছে, সেটা তুই কর।

র‍্যাম্বো বলল, বেশ, সেটা এইরকম: ১। এবি ডে ভিলিয়ার্স (উইকেটকিপার)– ১১৪টা টেস্টে ৮৭৬৫ রান, অ্যাভারেজ, ৫০.৬৬, সেঞ্চুরি ২২টি ২। কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক)– ৮৪টি টেস্টে ৭১২৯ রান, অ্যাভারেজ ৫৩.৬০, ২৪টি সেঞ্চুরি ৩। স্টিভ স্মিথ– ৭৭টি টেস্টে ৭৫৪০ রান, অ্যাভারেজ ৬১.৮০, ২৭টি সেঞ্চুরি ৪। বিরাট কোহলি– ৯১টি টেস্টে ৭৪৯০ রান, অ্যাভারেজ ৫২.৩৭, ২৭টি সেঞ্চুরি ৫। গ্রেগ চ্যাপেল– ৮৭টি টেস্টে ৭১১০ রান, অ্যাভারেজ ৫৩.৮৬, ২৪টি সেঞ্চুরি ৬। জাভেদ মিঁয়াদাদ– ১২৪টা টেস্টে ৮৮৩২ রান, অ্যাভারেজ ৫২.৫৭, ২৩টি সেঞ্চুরি ৭। ইয়ান বোথাম– ১০২টি টেস্টে ৫২০০ রান, অ্যাভারেজ ৩৩.৫৪, ১৪টি সেঞ্চুরি, উইকেট ৩৮৩, গড় ২৮.৪০, স্ট্রাইক রেট–৫৬.৯, ইকোনমি–২.৯৯ ৮। কপিল দেব– ১৩১টি টেস্টে ৫২৪৮ রান, অ্যাভারেজ ৩১.০৫, ৮টি সেঞ্চুরি, উইকেট ৪৩৪, গড় ২৯.৬৪, স্ট্রাইক রেট ৬৩.৯, ইকোনমি ২.৭৮ ৯। অনিল কুম্বলে–  ১৩২টি টেস্টে ৬১৯টি উইকেট, গড় ২৯.৬৫, স্ট্রাইক রেট ৬৫.৯, ইকোনমি ২.৬৯, পাশাপাশি ২৫০৬ রানও করেছেন, গড় ১৭.৭৭, সেঞ্চুরি ১টি ১০। ওয়াকার ইউনিস– ৮৭ টেস্টে ৩৭৩টি উইকেট, অ্যাভারেজ ২৩.৫৬, স্ট্রাইক রেট বিস্ময়কর, ৪৩.৪, ইকোনমি একটু বেশি, ৩.২৫ ১১। অ্যালান ডোনাল্ড– ৭২টি টেস্টে ৩৩০টি উইকেট, গড় ২২.২৫, স্ট্রাইক রেট অসামান্য, ৪৭, ইকোনমি ২.৮৩। জ্যাঙ্গো বলল, আঃ, এ তো দারুণ দল। তুই দু’জন অলরাউন্ডার নিয়েছিস।

র‍্যাম্বো বলল, এবার আমার দলের সঙ্গে যে দলটা খেলবে…

জ্যাঙ্গো বলল, হ্যাঁ, সেটাই করছি। শোন: ১। অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার (উইকেটকিপার)– ৬৩টি টেস্টে ৪৭৯৪ রান, গড় ৫১.৫৪, সেঞ্চুরি ১২টি, ২। জো রুট– ১০৫টি টেস্টে ৮৭১৪ রান, গড় ৪৮.৬৮, ২০টি সেঞ্চুরি, ৩। ইউনিস খান– ১১৮টা টেস্টে ১০০৯৯ রান, গড় ৫২.০৫, ৩৪টি সেঞ্চুরি, ৪। ইনজামাম উল হক– ১২০টি টেস্টে ৮৮৩০ রান, গড় ৪৯.৬০, ২৫টি সেঞ্চুরি, ৫। মাহেলা জয়বর্ধনে– ১৪৯টি টেস্টে ১১৮১৪ রান, গড় ৪৯.৮৪, ৩৪টি সেঞ্চুরি, ৬। স্টিভ ওয় (অধিনায়ক)– ১৬৮ টেস্টে ১০৯২৭ রান, গড় ৫১.০৬, ৩২টি সেঞ্চুরি, এছাড়া টেস্টে ৯২টা এবং ওয়ানডে–তে ১৯৫টা উইকেট নিয়েছেন তিনি, ৭। শন পোলক– ১০৮টা টেস্টে ৪২১টি উইকেট, গড় ২৩.১১, স্ট্রাইক রেট ৫৭.৮, ইকোনমি ২.৩৯, পাশাপাশি ৩৭৮১ রান করেছেন তিনি, গড় ৩২.৩১, সেঞ্চুরি ২টি, ৮। রবিচন্দ্রন অশ্বিন– ৭৮টি টেস্টে ৪০৯টি উইকেট, গড় ২৪.৬৯, স্ট্রাইক রেট ৫২.৬, ইকোনমি ২.৮১, পাশাপাশি ২৬৫৬ রান করেছেন তিনি, গড় ২৭.৯৫, সেঞ্চুরি ৫টি, ৯। জোয়েল গার্নার– ৫৮টা টেস্টে ২৫৯টি উইকেট, গড় ২০.৯৭, স্ট্রাইক রেট ৫০.৮, ইকোনমি ২.৪৭, ১০। কোর্টনি ওয়ালশ– ১৩২টি টেস্টে ৫১৯টি উইকেট, গড় ২৪.৪৪, স্ট্রাইক রেট ৫৭.৮, ইকোনমি ২.৫৩, ১১। মাইকেল হোল্ডিং– ৬০টি টেস্টে ২৪৯টি উইকেট, গড় ২৩.৬৮, স্ট্রাইক রেট ৫০.৯, ইকোনমি ২.৭৯।

র‍্যাম্বো বলল, চমৎকার হয়েছে। আরও দল করা গেলে মহম্মদ ইউসুফ, কেভিন পিটারসন, অ্যালান বর্ডার, ডেভিড গাওয়ার, গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ, ক্লাইভ লয়েড, গ্রেইম স্মিথ, অ্যালিয়েস্টার কুক, গ্যারি কার্স্টেন, হাশিম আমলা, শিউনারায়ণ চন্দ্রপল বা ভি ভি এস লক্ষ্মণ-এর মতো গ্রেট টেস্ট ব্যাটমম্যানদের নেওয়া যেত। আরও খেলতে পারতেন মার্টিন ক্রো, অরবিন্দ ডি সিলভা, সাঈদ আনোয়ার, আলভিন কালিচরণ, মহিন্দর অমরনাথ বা জহির আব্বাস তাঁদেরও মূল্যায়ন অসমাপ্ত রইল…

জ্যাঙ্গো বলল, আর নেওয়া যেত অ্যান্ডি রবার্টস, জেফ টমসন, শোয়েব আখতার, জেমস অ্যান্ডারসন বা স্টুয়ার্ট ব্রড-এর মতো বোলারদের। হরভজন সিং, ডেরেক আন্ডারউড বা আব্দুল কাদিরের মতো স্পিনারদের, শাকিব ল হাসান বা সনথ জয়সূর্য-এর মতো অলরাউন্ডারদের, মহেন্দ্র সিং ধোনি বা ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম-এর মতো উইকেটকিপার–ব্যাটসম্যানকে…

র‍্যাম্বো বলল, গ্রেম পোলক, ব্যারি রিচার্ডস বা শ্যেন বন্ড-এর মতো গ্রেট প্লেয়ারদের কথা ভাবাই গেল না। দুর্ভাগ্যই তাঁদের খেলার সুযোগ দেয়নি, কোথায় যেতে পারতেন তাঁরা…

জ্যাঙ্গো বলল, তবু গত পঞ্চাশ বছরের সেরা ক্রিকেটারদের নিয়ে এইটুকু যে আলোচনা করা গেল, তাতেই আমার খিদে বেড়ে গেছে…

র‍্যাম্বো বলল, আমারও। খুব খিদে পেয়েছে রে… সেই সময় ঘুমের মধ্যেই উপাসনা বিড়বিড় করে ওঠে, সৌরভ গাঙ্গুলি, আমার কাছে চিরকাল তুমিই সেরা…

Facebook Twitter Email Whatsapp

এই সংক্রান্ত আরও খবর:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *